sa.gif

উত্তরা বিক্ষোভ
মালিক পক্ষের চুক্তি ভঙ্গ, আবারও শ্রমিকের প্রতিবাদ


উত্তরার বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের দাবি মেনে নেওয়ার পরও শেষ ষড়যন্ত্র করেছে টপ জিন্স লিমিটেড কারখানার মালিক পক্ষ। উত্তরার আটি পাড়ার ওই কারখানাটির শ্রমিকরা শনিবার সকালে কারখানায় গিয়ে দেখতে পায় নির্যাতক কর্মকর্তারা একই পদে বহাল আছে। এতে শ্রমিকরা আবার উত্তেজিত হয়। শ্রমিকরা আগে নির্যাতন করা ওই সব কর্মকর্তাদের বরখান্ত না করা পর্যন্ত ডিউটি করবেনা বলে জানিয়ে কর্মবিরতি শুরু করে। শেষে বাধ্য হয়ে মালিক পক্ষ শ্রমিকদের দাবি মেনে নিতে বাধ্য হয়। এ তথ্য জানিয়েছে শ্রমিকদের সাংগাঠনিক ও আইনি সহায়তা দেয়া শ্রমিক ফেডারেশন ‘গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র’র সহসভাপতি ইদ্রিশ আলী ও কার্যকরি সভাপতি কাজীর রুহুল আমিন।


নেতৃবৃন্দ জানান, ছাঁটাই প্রত্যাহার ও নির্যাতন বন্ধের দাবিতে ২৯ আগস্ট সড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ শুরু করে উত্তরার ওই কারখানার শ্রমিকরা। এ সব শ্রমিকদের দাবির সাথে সংহতি জানিয়ে মাঠে নামে আশে-পাশের আরও ১২টি কারখানার শ্রমিকঅ। এর ফলে উত্তরা সড়ক বন্ধ হয়ে যায়। বন্ধ হয়ে যায় দেশের উত্তরাঞ্চলের সাথে রাজধানীর।


ওইদিন সিপিডির এক সংলাপে গার্মেন্ট শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্রের সভাপতি মন্টু ঘোষ উদ্ভুত পরিস্থিতি শান্ত করার জন্য উপস্থিত বিজিএমইএ-এর সাবেক সভাপতি ও এফবিসিসিআই এর সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিনের হস্তক্ষেপ চান। তিনি বলেন, টপ জিন্স কারখানার শ্রমিকরা ট্রেড ইউনিয়ন করার চেষ্টা করলে কর্তৃপক্ষ শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে ছাঁটাই করে, নির্যাতন করে। এর প্রতিবাদে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করছে। সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন ওই মিটিংয়ে জানান, তৈরি পোশাক শিল্পের সকল সমস্যা শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনা করে সমাধান করেন, এক্ষেত্রেও তাই হচ্ছে। কোটা আন্দোলন যাতে শ্রমিকদের সাথে জড়িয়ে না পড়ে তার জন্য সতর্ক থাকার আহবান জানান সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।


২৯ আগস্ট দিন শেষে ওই কারখানার শ্রমিক নেতৃবৃন্দের সাথে বিজিএমইএ ভবনে বৈঠক করে বিজিএমইএ এর আইন ও শ্রমিক সেল। বৈঠকে টপ জিন্সের শ্রমিক নেতাদের ছাঁটাই প্রত্যাহার, আহত শ্রমিকদের চিকিৎসা, বন্ধ কয়েকদিনের বেতন প্রদান ও শ্রমিকদের দাবি অনুযায়ী নির্যাতন কারী কর্মকর্তাদের বরখাস্ত করতে বাধ্য হয়। এরপর শুক্রবার ছুটির দিন সাপ্তাহিক ছটি ছিল। শনিবার সকালে টপ জিন্স ক্রাখানার শ্রমিকরা কারখানায় গিয়ে দেখতে পায় নির্যাতক কর্মকর্তারা কাজ করছে। এরপর শ্রমিকরা আবার বিক্ষুব্ধ হয়ে ওঠে। শ্রমিকদের দাবির মুখে নির্যাতক কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হয়। শ্রমিকরা জানায়, এরপর উভয়পক্ষের সম্মতিতে কারখানায় শনিবার ১ সেপ্টেম্বর একদিনের জন্য কারখানা বন্ধ ঘোষণা হয়। রোববার যথারীতি কারখানা খোলার কথা। এ বিষয়ে মালিক পক্ষের বক্তব্য পাওয়া গেলে যুক্ত করা হবে।


রুহুল আমিন জানান, টপ জিন্স কারখানাতে শ্রমিকরা ট্রেড ইউনিয়ন করার চেষ্টা করছে। তারা এ ব্যাপারে আবেদনও করেছে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে। এরপর থেকে মালিক পক্ষ শ্রমিক নেতৃবৃন্দের উপর বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন শুরু করে। ২০ আগস্ট কারখানার শ্রমিক নেতৃবৃন্দকে বাইরের মাস্তান দিয়ে মারধর করে। এতে চারজন শ্রমিক আহত হয়। আর একজন শ্রমিকের অবস্থা খুবই গুরুতর আকার ধারণ করে। ইদের ছুটির পর ২৮ তারিখে শ্রমিকরা কারখানার এসে নির্যাতনের প্রতিবাদ করে। এতে মালিক পক্ষ আরও ক্ষুব্ধ হয়। এরপর শ্রমিকরা নির্যাতনের বিচার ও ছাঁটাই প্রত্যাহারের দাবিতে শ্রমিকরা ২৯ আগস্ট সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করে। বিক্ষোভে যোগ দেয় আরও ১২টি কারখানার শ্রমিক।

(ছবিটি উত্তরা বিক্ষোভের: ফাইল থেকে সংগৃহিত)






Pakkhik Sramik Awaz
Reg: DA5020
News & Commercial:
85/1 Naya Paltan, Dhaka 1000
email: sramikawaznews@gmail.com
Contact: +880 1972 200 275, Fax: +880 77257 5347

Legal & Advisory Panel:
Acting Editor: M M Haque
Editor & Publisher: Zafor Ahmad

Developed by: Expert IT Solution